প্রেমের মড়া জলে ডোবে না

  • প্রকাশ: ২০১০
  • আই এস বি এন: 978-984-8856-08-6
  • পৃষ্ঠা: ৮০
  • বাঁধাই: বোর্ড বাঁধাই
  • মূল্য: ১২০

তার স্বেচ্ছাচারী পথ-বাঁকগুলোর খোঁজ রাখে না তথাকথিত গদে চলা প্রতিষ্ঠান, প্রতিষ্ঠিত মানসিকতার বিশেস্নষণ-ভংগি। অথচ, এখন, প্রতিষ্ঠানবিরোধী এই সংকীর্ণ অভিধায় আর তাকে কুলোচ্ছে না, হয়তো তিনি কোনও এক কাউন্টার-কালচারের সন্ধানী-, ‘বিশ্বাসী’ নয় কিন্তু, হয়তো নয়ও। তার ব্যাখ্যায় এই পৃথিবীতে ‘ঠিক’ বলে কিছু হতে পারে না।, তা স্থান-কাল-ব্যক্তি নির্ভর একটা আবর্ত মাত্র, কিংবা তা-ও নয়, কোনো স্থির বিন্দু হয় না বোধ হয়। কিংবা এই ‘বলাটা’, এইভাবে বলাটাও ভুল হয়ে যাচ্ছে, সমসত্ম স্থির-বাক্যই আপেড়্গিক। আবার ধাঁধা এখানে যে, আপেড়্গিক শব্দটাও আপেড়্গিক। আবার ধাঁধা এখানে যে, আপেড়্গিক শব্দটাও আপেড়্গিক। এই সব ভুলভাল বিজ্ঞান-ব্যাখ্যার মধ্যেই তার প্রিয় বাক্য ‘যাকে ঠিক বলে ধেও নেওয়া হয়েছে তাকেই বেশি করে পরীড়্গা করা দরকার’ এসে যায়। তার পূর্বজন্মের প্রতিষ্ঠান বিরোধিতা আর সাম্প্রতিক জন্মের ‘প্রতিষ্ঠানবিরোধিতার বিরোধিতা’র মাঝে জমে থাকে হাজার প্রশ্ন। যত বৈপরীত্য ততোই অসংগতি। হ্যাঁ, সুবিমলমিশ্র সর্বদাই নিজেকে নিজেকে উল্টেপাল্টে দেখেন, দেখতে ভালোবাসেন। তার লেখা আমাদের চিরকালের চেনাজানার নিশ্চিতি-কে বিব্রত করে যায় প্রতিপদে, করতে থাকে করতেই থাকে। এই ব্যক্তিমাত্রিক কাহিনীকল্পে একদিনের একটি নারীঘটিত ঘটনার আপাত-বিরোধী সংবাদ-ভাষ্যকে সম্মুখে রেখে এক অনির্ণেয় ধাবমানতা; ব্যাকগ্রাউন্ডে  উপমহাদেশের মিথোলজির নারীকেন্দ্রিক উপলব্ধিমালা এবং পুরম্নষের চোখ দিয়ে। দু’ধরনের ঘটনা-পরম্পরা পরস্পর পরস্পরকে বুঝতে চাইছে, উপলব্ধি করতে চাইছে, হয়তো-বা

 
Ulkhar