Home নির্বাচিত লেখা তিনটি কবিতা । মারুফুল আলম ।। কবিতা

তিনটি কবিতা । মারুফুল আলম ।। কবিতা

তিনটি কবিতা  ।  মারুফুল আলম ।। কবিতা
0
0

 বই : ঝরা পাতা, শূন্যতার ঘ্রাণ – মারুফুল আলম /কবিতা / ২০১৭, উলুখড়।।

রহস্য

একদিন, তাকে হত্যা করা হ’লো। জানি

আমাদের অভিধানে ‘আশ্চর্য’শব্দটি

আজ আর তাহা নহে আশ্চর্যজনক –

 

তবুও নিপুণভাবে আমাদের কেরানি কলম

এই তথ্য ছড়াতেছে মগজের ধূম্র এরিনায়।

 

সেখানেও যদি পড়ে হাতুড়ির তুমুল আঘাত

নিশ্চিত গুঁড়িয়ে যাবে ভাববাদী দর্পণের

যাবতীয় ছায়া-উপছায়া – অতঃপর

মেঘ-রৌদ্র ঝড়ের তাণ্ডব শেষে শুরু হবে অতি

সেই প’চে যাওয়া পুরনো প্যাঁচাল : ‘এসো নীপ বনে…’

 

হ্যাঁ পাঠক, এভাবে রেখেছি ঢেকে হত্যা উপাখ্যান।

 

জাতিসংঘ

উড়িতেছে শ্বেত কবুতর

মারহাবা! শাবাস-শাবাস!!

 

আকাশ নীল বা ধূসর যাই হোক না কেন আমি

কিন্তু আজ সবিস্তারে জেনে গেছি

তার ইতিহাস।

 

সেই হেতু, সুস্বাগতম! এসো হে ভদ্রে –

মিথ্যাবাদী রাখালের মতো সর্বক্ষণ

চিৎকার করি বাঘ! বাঘ!!

 

ভয় ভয় শুধু ভয়… অতি-অলৌকিক

বাঘের নখরে ফালাফালা মানুষের মুখ

বুক, বুকের পাঁজর; স্বপ্ন মহাশয়!

 

তদুপরি, সভ্যতার নাভিমূলে

পুনর্বার শুরু হচ্ছে আন্তর্জাতিক ব্যাঘ্র সম্মেলন!

 

চতুর্দশপদী

দুরন্ত এপ্রিল এসে পুড়িয়ে দিয়েছে শাদা দাঁত।

লাল-নীল ভীতি-রঙ ফুঁসে ওঠে নগ্ন কেউটের

মতো আহত আক্রোশে। অতিকায় অন্ধকার রাত

প্রতিদিন হামাগুড়ি দেয়, তবে কি আমি চাঁদের

 

সান্নিধ্যে এসে নির্বিঘ্নে ভুলে যাবো মেঘের বিবাহ?

সারা রাত ছায়াগুলো ভেঙে ভেঙে পড়ে, আমি এই দিকে

চুপি চুপি চুষে খাই আগুনের হলুদ আবহ –

স্পন্দিত আত্মার রক্তবর্ণ বীজ। নির্জন প্রান্তিকে

 

প্রকৃতির অনুবাদে পাথরের দুঃখ লিখে রাখি

যেখানে আকাশ এসে ঝুলে থাকে মাথার উপরে

নিরক্ষর অভিমান হেতু স্থির, নিঃসঙ্গ, একাকী

 

দুরন্ত এপ্রিল এসে পুড়িয়ে দিয়েছে পাতা, ঘাস…

অতিক্রান্ত সময়ের কাচ কাচ স্বচ্ছ সরোবরে

ফুটে আছে অতীন্দ্রিয় মেঘ; অন্ধ পাঠাভ্যাস!